শেখ হাসিনার আসনে ‘নির্বাচন করতে চায়’ ফাতেমা…হাসিনার লজ্জা থাকা উচিত

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় কারাগারে থাকা বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার সাথে কারাগারে থাকা গৃহকর্মী ফাতেমা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আসনে নির্বাচন করতে চান বলে জানিয়েছেন। লাজুক হাসিতে বলেন, নির্বাচন করার অনুমতি যদি দেনই তাহলে শেখ হাসিনার আসনেই মনোনয়নের অনুমতি চাই।

বিএনপি চেয়ারপার্সনের কারাবন্দীর একমাস পূর্তি উপলক্ষে কারাগারে গিয়ে তার সঙ্গে দেখা করেছেন দলের মহাসচিবসহ শীর্ষ ১০ নেতা। কারাগারে প্রবেশের পর কিছু আনুষ্ঠানিকতা শেষে সরাসরি তাদেরকে নিয়ে যাওয়া হয় খালেদার কক্ষে।

এসময় প্রথমেই মির্জা ফখরুল বেগম জিয়াকে সালাম দিয়ে কক্ষে প্রবেশ করেন। এরপর একে একে প্রবেশ করেন মওদুদ, জমিরউদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাসসহ বাকিরা। এসময় সেখানে হৃদয় বিদারক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। কিছুক্ষণ পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে সকলের জন্য চা নিয়ে আসেন ফাতেমা।

ফাতেমাকে দেখে একপর্যায়ে মির্জা আব্বাস বলেন: ফাতেমা, তুমি তো জনপ্রিয় হয়ে গেছো। নির্বাচন করবা নাকি? মির্জা আব্বাসের এমন কথায় উপস্থিত সকলে হেসে ওঠেন। মুচকি হাসেন খালেদা জিয়াও।

জবাবে লাজুক হাসিতে ফাতেমা জানান: স্যার, জনপ্রিয় হয়েছি কিনা জানি না। যা করেছি ম্যাডামের জন্যই করেছি। আপনারা যদি আমাকে কোন নির্বাচনে মনোনয়ন দেন, তাহলে শেখ হাসিনার আসনে মনোনয়ন দেওয়ার অনুরোধ করবো। ম্যাডামকে বিনা কারণে কারাগারে শাস্তি দেওয়ার প্রতিশোধ তাকে নির্বাচনে হারিয়ে নেবো।

এসময় উপস্থিত সকলে ফাতেমাকে ‘সাবাশ ফাতেমা’ বলে সাহস দেন এবং খালেদা জিয়াকে ভালোভাবে দেখে রাখার কথা বলেন।

এরপর খালেদা জিয়ার সাথে সাক্ষাত শেষে বেরিয়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিকদের বলেন: কারো উস্কানিতে পা না দিয়ে শান্তিপূর্ণ আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন খালেদা জিয়া।

বিএনপি মহাসচিব বলেন: তিনি সাহসিকতার সঙ্গে সবকিছু মোকাবেলা করছেন। আমাদের মাধ্যমে দেশবাসীকে জানিয়েছেন, তার মনোবল অত্যন্ত উঁচু রয়েছে। দেশের জন্য যেকোন ত্যাগ স্বীকার করতে তিনি প্রস্তুত। শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলন করে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে। একদিন সত্য প্রতিষ্ঠিত হবেই।

আন্দোলনের বিষয়ে মহাসচিব বলেন: পুলিশ আমাদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে ইচ্ছাকৃতভাবে উস্কানি দিচ্ছে। খালেদা জিয়া এ ধরনের উস্কানিতে পা না দিয়ে শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করতে বলেছেন।

ফখরুল জানান: নেত্রী কারাগারে থাকায় যৌথ নেতৃত্বে সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নিচ্ছি এবং শান্তিপূর্ণ আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছি।

Facebook Comments