কেরানীগঞ্জে বিএনপি’র পার্টি অফিসে আওয়ামীলীগের হামলা

কেরানীগঞ্জ উপজেলার কালিন্দী ইউনিয়ন বিএনপি’র পার্টি অফিসে সরকার দলীয় নেতাদের নির্দেশে আওয়ামীলীগ নেতা কর্মীরা হামলা চালিয়েছে, ভেঙে ফেলেছে অফিস সহ গুরুত্বপূর্ণ আসবাবপত্র।
বড়িশুর ঘাটে অবস্থিত বিএনপি’র অফিসটির প্রতিষ্ঠাতা কেরানীগঞ্জ থেকে চারবারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য সাবেক মন্ত্রী জননেতা আমান উল্লাহ আমান।বিএনপি নেতাদের দাবি অন্যায় ভাবে ভেঙ্গে ফেলা হলো এই অফিসটি। বিএনপি নেতারা এই ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাত জানিয়ে বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেন। এ সময় উপস্থিত নেতারা বলে কেরানীগঞ্জ এর মাটিঁ বিএনপির ঘাটিঁ কেরানীগঞ্জ বাসী নির্বাচন মানেই বুজে ধানের শীষ।

কারন কেরানীগঞ্জবাসীর প্রাণের নেতা আমান উল্লাহ্ আমান, কেরানীগঞ্জবাসীর হৃদয় এ জায়গা করে নিয়েছে। তার উন্নয়ন ও ভালোবাসা দিয়ে এর প্রমান কেরানীগঞ্জবাসী বার বার ভোটের মাধ্যমে দিয়েছে। চার বার ধানের শীষ এ ভোট দিয়ে আমান উল্লাহ্ আমানকে নির্বাচিত করে। সেই কেরানীগঞ্জ থেকে বিএনপির নাম মুছে ফেলা যাবে না।
এ সময় নেতারা আরো বলেন অবৈধ হাসিনা সরকার হামলা-মামলা,গুম-খুন করেই খান্ত হয়নি বিএনপিকে দমন করতে যা যা প্রয়োজন তার নীল নকশা তৈরি করেছে কিন্তু আওয়ামীলীগ কখনও সফল হতে পারবে না,কেরানীগঞ্জ এর প্রতিটা বিন্দু কণায় কণায় লেগে আছে বিএনপির উন্নয়নের ছাপ তার প্রমান কেরানীগঞ্জ বাসী আগেও দিয়েছে এবং পরেও দিবে ভোটের মাধ্যমে ইনশাহ্ আল্লাহ্‌।

উপস্থীত আরেক নেতা বলে কেরানীগঞ্জ উপজেলায় আওয়ামীলীগ এতটাই দুর্বল যার প্রমান আমরা পেয়েছি বিগত স্থানীয় নির্বাচনে দেখতে পেয়েছি উপজেলা নির্বাচন এ বিএনপি প্রার্থীকে সমান সুযোগ ও প্রচরনা করতে দেয়নি বিন্দু পরিমান এ তারপরও বিএনপি’র পার্থী ভোট পাচ্ছিল সেটা বুজতে পেরে ভোট চুরি করে প্রতিটা কেন্দ্র থেকে বিএনপির এজেন্টদের বের করে দিয়ে পুলিশ এর সাহায্য নিয়ে তারা অপেন নৌকায় ছিল মারে এবং ইউপি নির্বাচন গুলোতেও দেখতে পেরেছি তাদের নাটকিতার নির্বাচন।
বিএনপির নেতাদের হামলা মামলা সহ বিএনপির পার্টি অফিস ভেঙ্গে ফেলিলেই কি কেরানীগঞ্জ থেকে বিএনপির নাম মুছে ফেলতে পারবে কোন দিনও পারবে না।কেরানীগঞ্জ এর অপর নাম আমান উল্লাহ্ আমান কেরানীগঞ্জ এর মাটিঁ বিএনপি’র ঘাটিঁ।উপস্থিত বক্তব্যরত এক নেতা বলে উপজেলা চেয়ারম্যান শাহিন আহমেদ ও অবৈদ সরকার এর অবৈদ খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম যে ভাবে প্রচরনা চালাচ্ছে মনে হচ্ছে যেন সব তাদেরই অপর দিকে বিএনপির নেতা প্রচরনা তোহ দুরে থাক ঘরেই ঘুমাতে পারছে ন
এ কথা বলে এই নেতা চ্যালেঞ্জ করে বলেন যদি কলিজা থাকে তাহলে সমানে সমানে মাঠে নামুন দেখা যাবে কাদের জনপ্রিয়তা বেশী,আসুন কেরানীগঞ্জ উপজেলায় সমাবেশ করি জানি আমাদের অনুমতি মিলবে না সাহস থাকলে আসুন দেখি কাদের সমাবেশ এ কেরানীগঞ্জবাসী পাশে থাকে।এই ছোট্ট মন মানসিকতা নিয়ে রাজনীতি করতে আসছেন আমাদের অফিসটিই সহ্য করতে পারলেন না।পরে ডাকসুর সাবেক ভিপি সাবেক এমপি ও মন্ত্রী আমান উল্লাহ্ আমান জানিয়েছেন এটাই আওয়ামীদের রাজনৈতিক ধর্ম

এই সব ঘটনার নিন্দা জানিয়ে স্বৈরাচার মুক্ত বাংলাদেশ চাই!অবিলম্বে দেশনেত্রী বেগম খালেদার মুক্তির দাবি জানিয়ে বিএনপি চেয়ারপার্সন এর অন্যতম উপদেষ্টা আমান উল্লাহ্ আমান আরো বলেন সাহস থাকলে শেখ হাসিনা সহায়ক সরকার এর অদিনে নির্বাচন দিয়ে দেখুক বাংলার জনগন কাদের চায় ফল যাই আসুন আমরা মনে নিবো।জানি এটার কথা শুনলেই আওয়ামীলীগ এর নেত্রীর ঘুম হারাম হয়ে যায়।আন্দোলন এর মাধ্যমেই বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করবোই করবো ইনশা আল্লাহ্‌।

Facebook Comments