বিএনপি ও খালেদা জিয়াকে নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে নানা গুঞ্জন!

খালেদা জিয়ার অসুস্থতা, ছোট ছেলে আরাফত রহমান কোকোর স্ত্রী শর্মিলা রহমান ও তার কন্যার দেশে আসা, গেল সপ্তাহে দুদফায় খালেদা জিয়ার সঙ্গে পরিবারের স্বজনদের সঙ্গে সাক্ষাৎ, শুক্রবার বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সঙ্গে কারাগারে সাক্ষাৎ, অসুস্থ খালেদা জিয়াকে চিকিৎসা দিতে সরকারের মেডিকেল র্বোড গঠন, মেডিকেল বোর্ডের চিকিৎসা নিতে খালেদা জিয়ার অস্বীকৃতির পাশাপাশি ব্যক্তিগত চিকিৎসকদের দিয়ে চিকিৎসা দেওয়ার দাবিসহ এর আরো বেশ কিছু বিষয়ে নিয়ে একধরণের অস্বস্তিতে রয়েছে সরকার ও বিএনপি।
উদ্বেগ উৎকন্ঠা রয়েছে দল ও জিয়া পরিবারের মধ্যে। চলছে রাজনীতিতে নানা হিসাব নিকাশ ও নানা গুঞ্জন।
খালেদা জিয়া অসুস্থ এই খবর প্রকাশ হওয়ার পর থেকেই গুঞ্জনের সূত্রপাত। এই ধারাবাহিকতায় বিএনপিতে উদ্বেগ উৎকন্ঠা লন্ডনে থাকা তার পরিবারের সদস্যদের কাছেও পৌছায়। পরিবারে সিদ্ধান্তে খালেদা জিয়ার পাশে দাঁড়াতে ও তার সার্বিক অবস্থা পারিবারিকেভাবে জানতে মালয়েশিয়া থেকে দুই সপ্তাহ আগে দেশে পাঠানো হয় আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী শর্মিলী রহমান ও তার ছোট মেয়েকে। তিনি দেশে এসেই পরিবারের অন্য সদস্যদের নিয়ে দেখা করতে ছুটে যান পুরান ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগারে যেখানে খালেদা জিয়া বন্দি। প্রায় দুই ঘন্টা সময় অতিবাহিত করেন তারা।

এরপর গত বৃহস্পতিবার আবারো দেখা করেন শর্মিলী রহমান ও তার স্বজনরা। এরপর থেকে রাজনীতিতে হঠ্যাৎ চাওর হতে শুরু করে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা দেশে হবে না বিদেশে হবে। গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে, সরকার ও জিয়া পরিবার নাকি চাচ্ছে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা বিদেশে নিয়ে করাতে। যদিও এই খবরের কোনো সত্যতা কোনো পক্ষ থেকেই নিশ্চিত করা যায়নি। কারণ খালেদা জিয়ার স্বজনরা এবিষয়ে মিডিয়াতে কোনো কথা বলছেন না। তার অসুস্থতা নিয়ে তার পরিবারের সদস্যারা উৎকন্ঠার মধ্যে রয়েছেন
তবে বিএনপির নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র জানায়, খালেদা জিয়া কোনো অবস্থাতেই সমঝোতা করতে রাজি নন। তিনি দেশে থেকেই তার ব্যক্তিগত চিকিৎসকদের চিকিৎসা নিতে চান। গেল সপ্তাহে খালেদা জিয়া চিকিৎসা নিয়ে সরকারী দলের নেতা ও বিএনপির নেতাদের মধ্যে এক ধরণের আলোচনার জন্ম দেয়। আর এ সুত্রপাত হয় বিএনপির মহাসচিবের একটি বক্তব্যকে কেন্দ্র করে। এরপর বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্পষ্ট করে বলেন, খালেদা জিয়া নিজেই সিদ্ধান্ত নিবেন তিনি দেশে না বিদেশে চিকিৎসা নিবেন। তবে তার আগে অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তি দিতে হবে।
বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দ্বিতীয় প্রচেষ্টায় কারাগারে খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করছেন। সাক্ষাৎ শেষে তিনি খালেদা জিয়ার অসুস্থার বিষয়ে কথা বলেছেন সংবাদ মাধ্যমকে। বিএনপির পরিচালনা বোর্ডের সম্মতিতে মির্জা ফখরুল খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন।আস

Facebook Comments